আজ- বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Shotto Barta Logo

শিরোনাম

গুরুদাসপুরে ঘটনার ৭ দিনের মধ্যে রহিম খুনের রহস্য উন্মোচন করলো পুলিশ: ভারাটিয়া খুনিসহ আটক ৩

সত্যবার্তা ডেস্ক :
পরকীয়া প্রেমসহ জমি বন্ধকের ২ (দুই) লাখ টাকা ফেরত চাওয়াকে কেন্দ্র করে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের নাজিরপুর নতুনপাড়া গ্রামের সোনামিয়ার ছেলে ভ্যান চালক আব্দুর রহিম (৪৫) কে মোটর সাইকেলের ক্লাসের তার দ্বারা শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয় । আসামী ভারাটিয়া খুনি বিপ্লবের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব তথ্য জানা গেছে।
মঙ্গলবার (৩১ মে) সকাল ১০ টায় গুরুদাসপুর থানায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে নাজিরপুরের রহিম হত্যার রহস্য উন্মোচনের এসব তথ্য জানান সিংড়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জামিল আকতার।
সহকারী পুলিশ সুপার জানান ,ভ্যান চালক রহিম হত্যা ঘটনার পর নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহার নেতৃত্বে তথ্য প্রযুক্তি ও সোর্সের মাধ্যমে আসামীদের সনাক্ত করা হয়। গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) আব্দুল মতিন এবং মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই (নিঃ)আকরামুজ্জামানের সমন্বয়ে পৃথক ৩ টি টিম বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। তথ্য প্রযুক্তিসহ সোর্সের দাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে উপজেলার গোপিনাথপুর গ্রামের নায়েব আলীর পুত্র ভাড়াটিয়া খুনি বিপ্লব(৩৫)কে ঘটনার এক সপ্তাহের মধ্যে ৩০/৫/ ২২ তারিখ সোমবার ভোর সাড়ে ৬ টায় গোপিনাথপুর বাড়ি থে কে পুলিশ গ্রেফতার করে।বিপ্লবকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে একইদিনে অভিযান চালিয়ে পুলিশ গোপিনাথপুর গ্রমের মৃত মকছেদ সরকারের পুত্র হান্নান সরকার ( ৪১) ও গোপিনাথপুর ( জোলারকান্দি) গ্রামের প্রবাসি বায়হান সরকারের পুত্র লিটন সরকারকে( ১৭) গ্রেপ্তার করে। থানায় তাদেরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে দ্রুতই রহিম খুনের আসল রহস্য উন্মোচিত হয়।
এএসপি জামিল আকতার সংবাদ সম্মেলনে বলেন , ধৃত আসামি বিপ্লবকে থানায় নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জানা যায় যে, বিপ্লব , হান্নান সরকার এবং লিটন নাজিরপুরের গোপিনাথপুর জোলারকান্দি গ্রামের মালয়শিয়া প্রবাসী রায়হানের(৪২) নির্দেশে ভ্যানচালক আব্দুর রহিমকে ভুট্রা ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে স্বাসরোধ করে হত্যা করেছে।
নিহত রহিম এবং প্রবাসী রায়হানের পরিবারের সাথে ঘনিষ্ঠ সুসম্পর্ক ছিল। সেই সুবাদে রহিমের স্ত্রীর সাথে প্রবাসী রায়হানের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।
মালয়শিয়া প্রবাসী রায়হান বিদেশ গমনের ৫ বছর পূর্বে ২০১৭ সালে গোপিনাথপুর গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত জজ আব্দুল মজিদের নিকট হতে ৭ (সাত) বিঘ জমি লিজ নিয়ে লিজকৃত জমি রায়হান পুনরায় নিহত রহিমসহ আরো ৪ জনের নিকট টাকার বিনিময়ে বন্ধক রাখেন।নিহত রহিম ২ (দুই)লাখ টাকার বিনিময়ে রায়হানের নিকট হতে ২ (দুই) বিঘা জমি বন্ধক রাখেন ।
রায়হান মালয়শিয়া গমন করলে জমির মালিক অবসরপ্রাপ্ত জজ আব্দুল আব্দুল মজিদ রায়হানকে দেওয়া ৭ বিঘা জমির লিজের টাকা ফেরত দিতে বিলম্ব হলে রায়হান যাদের নিকট জজ সাহেবের লিজকৃত জমি বন্ধক রেখেছেন তাদের জমি ফেরত দেওয়ার জকথা বলতেন।তাই রায়হান বাধ্য হয়েই জজ সাহেবকে যথা সময়ে টাকা ফেরত দিতে বাধ্য হন ।অপরদিকে রহিম মালয়শিয়া প্রবাসি রায়হানকে জমি বন্ধক বাবদ দেওয়া ২ ( দুই) লাখ টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য চাপ দিতেন। এদিকে রহিমের স্ত্রীর সাথে রায়হানের পরকিয়া প্রেমের ঘনিষ্ঠতাএবং বারবার টাকা চাওয়ায় ভ্যান চালক রহিম প্রবাসি রায়হানের প্রধান শত্রুতে পরিনত হন । প্রবাসি রায়হানের ক্ষোভ দিন দিন বাড়তে থাকার এক পর্যায়ে মালয়শিয়াত অবস্থান করেই রহিমকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে রায়হানের চাচাতো ভাই হান্নান সরকারের সাথে প্রায় ৪ মাস আগে রহিমকে হত্যার পরিকপ্লনা করতে থাকে্ন ।প্রবাসি রায়হান রহিমকে হত্যার পরিকল্পনা তার ছেলে লিটন সরকারকেও (১৭) জানান এবং রহিমকে হত্যার নির্দেশ দেন ।রায়হান তার চাচাতো ভাই এবং ছেলে লিটনকে ভারাটিয়া খুনি ঠিক করতে বলেন। রায়হানের নির্দেশমত ১০ ( দশ) হাজার টাকার বিনিময়ে বিপ্লবকে ঠিক করে্ন । ঘটনার দিন ২৪ মে/২২ সন্ধ্যা অনুমান পৌনে ৮ টার সময় রহিম নাজিরপুর ডিগ্রী কলেজ মোড়ে মনির চা ষ্টলের সামনে ভ্যানে তালা দিয়ে চা খেতে থাকাকালিন পুর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক রায়হানের চাচাতো ভাই হান্নান, ছেলে লিটন ও ভাড়াটিয়া খুনি বিপ্লব এসে রহিমকে বলেন যে, নাটোর থেকে একজন সুন্দরি পতিতা মেয়ে এনেছেন । এই বলে রহিমকে চা ষ্টল থেকে ডেকে রাত ৮ টার দিকে ঘটনাস্থল আবেদ হাজীর ভূট্রার জমিতে নিয়ে গিয়ে হান্নান রহিমকে পিছন থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়ে পা চেপে ধরেন ।ভারাটিয়া খুনি বিপ্লব রহিমের হাত ধরে থাকেন এবং রায়হানের ছেলে লিটন মটর সাইকেলের ক্লাসের তার রহিমের গলায় পেঁচিয়ে রহিমকে শ্বাসরোধ কর হত্যা করে বলেন, এইবার তোর টাকা চাওয়ার সাধ মিটবে।হান্নান হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রবাসি রায়হানকে মোবাইল ফোনে জানান। পুলিশ রহিমকে হত্যায় ব্যবহৃত মটর সাইকেলের ক্লাসের তার আলামত হিসেবে জব্দ করেছে।
এ ব্যাপারে নিহত আব্দুর রহিমের ভাই আব্দুর রশিদ বাদি হয়ে গুরুদাসপুর থানায় ২৬/ ০৫/ ২০২২ তারিখে পেনাল কোড ৩০২/২০১/৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করেছেন।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

এই রকম আরোও খবর

সাক্ষাৎকার